Physician | Author | Blogger

ফসিল নিয়ে অভিযোগ ও উত্তর

এক নজরে

অনেকে বলেন আমার সমালোচকদের আমি তৎক্ষণাৎ উত্তর দিই না কেন, অথচ তারা এত চেষ্টা করে আমার মনোযোগ পেতে? কারণ খুব সহজ, একেতো আমি সময় কম পাই। নিজের পড়াশোনা, লেখার কাজে এক্সট্রা পড়া, পরিবারকে সময় দেয়া এত কিছু করে এদিকে দেখার মত সময় ইচ্ছা কোনোটাই হয় না। তাছাড়া এরা মূলত চরিত্রহননের জন্য নিজস্ব বায়াস থেকে সমালোচনার নামে রিডিকিউলের হাটবাজার বসায়। তাই এদের পাত্তা দেয়াটাই অর্থহীন।

যেমন একটা প্রমাণ দেখাই। কোনো এক গ্রুপের রিচ কমে যাওয়ায় (তাদের লোকই স্বীকার করেছে) আমাকে নিয়ে যথারীতি রিডিকিউল শুরু করেছে। আমার বইতে আমি মাইকেল ক্রেমোর একটি লেকচার ও বইয়ের রেফারেনস দিয়ে বলেছি অনেক ফসিল এমন আছে যা বিবর্তনের প্রচলিত বয়ানের সাথে মেলে না, তাই সেগুলোকে আমলে নেয়া হয় নাই। এগুলোর মাঝে কিছু এমন আছে যেগুলো আসলেই সমাধা করা মুশকিল। অনেকগুলো আবার বিতর্কিত। বিজ্ঞানের দার্শনিক হয়ত বলবেন এটা থিওরি লেডেননেস এর উদাহরণ।

অন্ধ সমালোচনায় প্রবৃত্ত হয়ে সমালোচক বলছে মাইকেল ক্রেমোর প্রায় ঘন্টাব্যাপী লেকচারে নাকি কোনো প্রমাণ পায় নাই! অন্ধ বলতে বাধ্য হলাম কারণ ক্রেমো পুরো লেকচারেই স্লাইড দিয়ে এভিডেনস দেখিয়েছে। তার বক্তব্য থেকে এটাও পরিষ্কার ধর্মীয় এজেন্ডা থেকে ফসিল দেখা তার মূল উদ্দেশ্য না। বরং সে মনে করে এই ফসিলগুলো সঠিক হলে মানুষের উৎপত্তির সাথে বেদের ধারণা মিলে।

আমি লেকচারটা দেখার পরে ক্রেমোর বই আনাই বাইরে থেকে। এক প্রিয়ভাই গিফট করে আমাকে। আমি বলতেছি না ক্রেমোর সব কথা ঠিক, আমিও অনেক কিছুতে একমত হবো না হয়ত। বাট যেটা ভ্যালিড সেটাকে একনলেজ করা তো উচিত, নাকি? সেই বই পড়ে যেগুলো আমার ভ্যালিড মনে হয়েছে তেমন অল্পকিছু দিয়েছি। সমালোচক সেই বই পড়ার প্রয়োজনই অনুভব করে নাই। আমার বইয়ের রেফারেনস অংশে আমি সেই বই থেকে কিছু অংশ তুলেও দিয়েছিলাম। তাও দেখে নাই, আগেই বলে দিছে “প্রমাণ ছাড়া”। মজা হইলো এই পুরো আলাপকে খারিজ করা জন্য সে অন্য উদাহরণ টেনে নিয়ে আসছে, যেগুলো আমি উল্লেখই করি নাই। জেনেটিক ফ্যালাসি ও স্ট্রম্যানিং এ এরা খুবই পারঙ্গম।

এই গ্রুপটা সম্ভবত চায় মানুষ যেন তাদের বলয়ের বাইরে না ভাবে, সবসময় একই বলয়ে অনুগত থাকে। এর আগেও আমাকে নিয়ে অত্যন্ত নগ্ন অপপ্রচার ও চরিত্র হনন করা হয়েছে। এতই মাত্রাতিরিক্ত ব্যক্তিআক্রমণ করা হয়েছে যে সেই গ্রুপের অন্যতম একজন সাবেক সিনিয়র মডারেটর আপসেট হয়ে স্ট্যাটাস দিয়েছে:

আবু রায়হান শুরু থেকেই এসকল অপপ্রচার ও ব্যক্তিআক্রমন দেখে এসেছে। প্রায় বছর পেরিয়ে গেছে। তাই এতদিনের ক্ষোভ ঝরে পড়েছে পোস্টে।

কিছুদিন আগে হেকেলের ভ্রূণতাত্ত্বিক প্রমাণ নিয়ে পোস্ট দিয়ে সেই সমালোচক আমার মনোযোগ আকর্ষণের খুব চেষ্টা করেছে। আমার একজন পাঠক আমার বইয়ের পুরো আর্গুমেন্ট বুঝে মেসেঞ্জারে খুব আফসোস করলেন-বরাবরের মতই খণ্ডিত অভিযোগ আর চরিত্রহনন দেখে। আমি সময় পেলে আরেকদিন এটা নিয়ে লিখবো।

সবার জন্য শুভকামনা।

Share This
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on email
Related Articles
Recent Articles

রাফান আহমেদ-এর বইসমূহ

আলাদাবইওয়াফিলাইফ

Copyright © Rafan Ahmed

No part of the website or posts can be published elsewhere without prior permission from author.  

Copyright © 2021 All rights reserved

error: Content is protected !!